বঙ্গবন্ধুর ৪৬তম শাহাদাত বার্ষিকীতে ২৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের দোয়া মাহফিল ও তবারক বিতরণ

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আব্দুল্লাহ আল মামুন, বিশেষ প্রতিনিধি:  বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদাত বার্ষিকী ও ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সারাদেশের মত দোয়া মাহফিল ও তবারক বিতরণ করেছে ২৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ।
গত রবিবার ২৫ নং ওয়ার্ডের শেখ সাহেব বাজার এলাকাস্থ আমতলা মোড়ে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, সাবেক সংসদ সদস্য ঢাকা-৭, সভাপতি বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) ও সদস্য কেন্দ্রীয় কমিটি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শরফুদ্দিন আহম্মেদ সেন্টু, সহ-সভাপতি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগ, মিনহাজ উদ্দিন মিন্টু, উপদেষ্টা ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগ, আখতার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগ, আনিস আহম্মেদ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগ, মনিরুল আলম চৌধুরী সোহেল, সাবেক সহ-সম্পাদক কেন্দ্রীয় উপ-কমিটি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, সুলতান হোসেন বিপুল, সাধারন সম্পাদক ২৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ এবং ফ্রান্স আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি শামসুল আলম খাঁন প্রমূখ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাঙালি জাতির জীবনে একটি শোকাবহ দিন ১৫ আগস্ট। ১৯৭৫ সালের আগস্টের কালরাতে ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পাশাপাশি হত্যা করেছে বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবকে। এছাড়াও সেদিন ঘাতকদের হাতে প্রাণ দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল। সেদিন পৃথিবীর এই ঘৃণ্যতম হত্যাকান্ড থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর সহোদর শেখ নাসের, ভগ্নীপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, ভাগ্নে শেখ ফজলুল হক মনি, তাঁর সহধর্মিণী আরজু মনি ও কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও আত্মীয়-স্বজন।
বঙ্গবন্ধু একটি জাতিকে স্বাধীন বাংলাদেশ উপহার দিয়েছিলেন তাঁর জীবনকে বিসর্জন দিয়ে। স্বাধীন বাংলাদেশের সূর্য অস্তমিত করার জন্য ৭১ এর পরাজিত শক্তি ও এদেশীয় ঘাতক দালালদের ষড়যন্ত্রে পৃথিবীর ইতিহাসে জঘন্যতম এই হত্যাকান্ডটি ঘটায় ঘাতকরা। তারা ভেবেছিল বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে পারলে স্বাধীন বাংলাদেশ একটি অকার্যকর রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে। কিন্তু আল্লাহর রহমতে ১৫ আগস্টে বেঁচে যাওয়া তার বড় সন্তান শেখ হাসিনা শক্ত হাতে নেতৃত্ব দিয়ে বাংলাদেশকে একটি আধুনিক ও সুখী সমৃদ্ধ রাষ্ট্র হিসেবে পৃথিবীর বুকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।
অনেক সময় হাইব্রিড নেতাদের দাপটে দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতা থেকে শুরু করে প্রকৃত ও সিনিয়র নেতারা মূল্যায়িত না হয়ে অনেকটা কোন ঠাসা হয়ে পড়েন। এসব সুবিধাবাদী, হাইব্রিড নেতাদের কারণে পোড়খাওয়া, ত্যাগী ও সৎ নেতারা রাজনীতি থেকে ছিটকে পড়েন। এ প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বিশেষ অতিথি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি শরফুদ্দিন আহম্মেদ সেন্টু আরো বলেন যে, হাইব্রিড নেতাদের থেকে সাবধান থাকতে হবে। হাইব্রিড ও সুবিধাবাদীদের অশুভ শক্তির কবল থেকে আওয়ামীলীগকে বাঁচাতে এবং দেশের উন্নয়নের ধারাকে অব্যহত রাখতে দলের প্রকৃত নেতা-কর্মীসহ সকলকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।
পরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের নিহত সকল সদস্যের রুহের মাগফিরাত এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার সুস্থতা ও দীর্ঘায়ুু কামনা করে বিশেষ মোনাজাত শেষে সর্ব সাধারনের মাঝে তবারক বিতরণ করা হয়।
অনুষ্ঠানটির সার্বিক আয়োজনে ছিলেন মাহবুবুল আলম চৌধুরী সেলিম।


সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *