ধর্ষনের মামলাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই সিদ্ধিরগঞ্জে পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার

সংবাদটি শেয়ার করুন:

স্বাধীন বাংলাদেশ রিপোর্ট:
সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় দায়ের করা ধর্ষনের মামলাটিকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই অভিযুক্ত মানিকের মা শিরিনা বেগম পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করেছেন। শিরিনা বেগমকে থানায় ডাকা হয়েছে তার ছেলে সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানার জন্য। কারন, তার ছেলে বর্তমানে ধর্ষন মামলার পলাতক আসামী। আমাদের ধারনা মায়ের সাথে অপরাধীর যোগাযোগ রয়েছে। বর্তমানে কঠোর লকডাউন চলছে। এই সময়ে পুলিশের দায়িত্ব কয়েকগুন বেড়ে গেছে। এখন যদি কেহ থানায় এসে কিছুক্ষন অপেক্ষা করতে হয় সেজন্য আমরা দায়ী নই। শিরিনা বেগম নিজের প্রযোজনেই থানায় বসে ছিলেন। যেহেতু তার ছেলে ধর্ষন মামলার আসামী।
বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয় যে, সিদ্ধিরগঞ্জে ছেলেকে না পেয়ে মাকে ১০ঘন্টা আটক, থানা থেকে মুক্ত হয়ে দারোগার ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে মা। শিরোনামে সংবাদের ব্যাপারে বলতে গিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। তিনি বলেন, মামলার স্বার্থে মহিলাকে থানায় ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। ১০ ঘন্টা আটক, দুইজন জিম্মাদারের স্বাক্ষর ও অনৈতিক সুবিধার বিষয়টি সঠিক নয়। ধর্ষনের মামলাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই এই ধরনের অভিযোগ। আমি বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদটির প্রতিবাদ জানাই। জানা গেছে, একটি শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ এনে ঐ শিশুর মা তানিয়া বেগম (২৫) মানিক (২২)কে অভিযুক্ত করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করে। এ ঘটনার পর থেকে মানিক পলাতক রয়েছে। ঘটনাটি ৪ মে বিকেল ৫টার দিকে পাইনাদী এলাকার জিয়ার রিক্সার গ্যারেজে ঘটেছে। ঘটনার পর থেকে মানিক পলাতক থাকায় গ্রেফতারের চেষ্টা করছে পুুলিশ কিন্তু না পেয়ে মা শিরিনাকে চাপ দেয়াটা অস্বাভাবিক নয় বলে পুলিশ জানান। এটা আসামী ধরার কৌশল।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *