অর্থ সংকটে স্থবির হয়ে পড়েছে ডিএনডি প্রকল্প কাজ ## ভয়াবহ জলাবদ্ধতা দুর্ভোগের আশঙ্কা

সংবাদটি শেয়ার করুন:

স্বাধীন বাংলাদেশ রিপোর্ট:
প্রয়োজনীয় অর্থ না পাওয়ায় স্থবির হয়ে পড়েছে ডিএনডি এলাকার পানি নিস্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ। প্রকল্পে বিভিন্ন কাজে নিয়োজিত ঠিকাদারদের প্রাপ্তি বিল পরিশোধ করতে না পারায় চলমান অধিকাংশ কাজ বন্ধ রয়েছে। ফলে আসছে বর্ষায় ডিএনডি এলাকার বাসিন্দাদের ভয়াবহ জলাব্ধতা দুর্ভোগে পতিত হওয়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্পের কাজ সচল রেখে জলাবদ্ধতা দুর্ভোগ লাঘবে চলতি অর্থবছরের জন্য বরাদ্ধকৃত বাকি অর্থ ছাড়ের জন্য প্রকল্প সংশ্লিষ্ট সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেছে প্রকল্প পরিচালক লে: কর্ণেল মো: আহসানুত তাকবিম চৌধুরী। গত ১৬ মে এআবেদন করা হয়। আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা (ডিএনডি) এলাকার নিস্কাশস ব্যবস্থার উন্নয়ন প্রকল্প (দ্বিতীয় পর্যায়) শীর্ষক প্রকল্পটির মেয়াদ জুন ২০২৩ পর্যন্ত বৃদ্ধিসহ প্রাক্কলন ব্যয় ১২৯৯৯১ দশমিক ১৭ লাখ টাকা নুন:নির্ধারণ করে সংশোধিত ডিপিপি একনেক সভায় অনুমোদিত হয়েছে। সংশোধিত ডিপিপি অনুযায়ী এপ্রকল্পের চলতি ২০২০-২০২১ অর্থবছরে ৩৫০৬১ দশমিক ৬০ লাখ টাকা ব্যয় নির্ধারণ করে কর্মপরিকল্পনা গৃহীত হলেও এডিপি অনুযায়ী প্রকল্পের অনুকুলে চার কিস্তিতে ৬০০০ লাখ টাকা ছাড় প্রদান করা হয়েছে। এমতাবস্থায় প্রকল্পের কাজ গৃহীত কর্মপরিকল্পনা মতে সুষ্ঠু, সুন্দর ও দ্রুতগতিতে এগিয়ে নেওয়ার জন্য চলতি ২০২০-২০২১ অর্থবছরের অবষ্ঠিত ২৯০৬১ দশমিক ৬০ লাখ টাকা প্রয়োজন। আবেদনে আরো বলা হয়েছে, প্রকল্পের বর্তমান ভৌত অগ্রগতি ৫০ দশমিক ৬৫ পারসেন্ট হলেও আর্থিক অগ্রগতি মাত্র ৪১ দশমিক ৫৫ পারসেন্ট। যার পরিপ্রেক্ষিতে সম্পন্নকৃত ৯ দশমিক ১০ পারসেন্ট কাজের বিল পরিশোধ করা সম্ভব হচ্ছেনা। যার মূল্য প্রায় ১১৮২৯ দশমিক ১৯ লাখ টাকা। প্রকল্প কাজে নিয়োজিত ঠিকাদারদের পক্ষে বিল প্রাপ্তি ব্যতিরেখে আর আর্থিক বিনিয়োগ করা সম্ভব না হওয়ায় চলামান কাজ স্থবির হয়ে পড়েছে। যার কারণে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা নিরসনে ভয়াবহ সংকট পরিলক্ষিত হবে বলে অনুমেয় এবং প্রয়োজনীয় অর্থ প্রাপ্তি ব্যতিরেখে অত্র দপ্তরের পক্ষে তা মোকাবেলা করা অসম্ভব হয়ে পড়বে। এছাড়াও উপযোগ স্থানাস্তর খাতে কোন অর্থ বরাদ্দ না পাওয়ায় প্রকল্পে বিদ্যমান উপযোগসমূহ স্থানান্তর করা সম্ভব হচ্ছেনা। ফলে প্রকল্পের খাল পুন: খননসহ আরসিসি ব্রিজ ও কালভার্ট এবং ক্রস ড্রেন নির্মাণ কাজ ব্যহত হচ্ছে দাবি করে চলতি বর্ষা মোকাবেলায় জরুরী ভিত্তিতে কমপক্ষে ১২৫০০ লাখ টাকা অর্থ প্রদানের অনুরোধ করা হয়েছে আবেদনে। আবেদনের সত্যতা স্বীকার করেছেন প্রকল্প পরিচালক লে: কর্ণেল মো: আহসানুত তাকবিম চৌধুরী।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *