পাঠানটুলী ঐতিহ্যবাহী ভোকেশনাল খেলার মাঠ রক্ষার দাবিতে এলাকাবাসীর স্বারকলিপি প্রদান

সংবাদটি শেয়ার করুন:

স্বাধীন বাংলাদেশ রিপোর্ট:
উন্মুক্ত খেলার মাঠের মধ্যে ভবন নির্মান না করে পরিত্যাক্ত জায়গায় ভবন নির্মানের মাধ্যমে ঐতিহ্যবাহী ভোকেশনাল খেলার মাঠ রক্ষার দাবীতে সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল পাঠানটুলীতে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ বরাবর স্বারক লিপি দিয়ে অভিবাবকবৃন্দরা।
সোমবার (৩১ মে) বেলা সাড়ে ১২ টায় অভিবাবকগণের কাছ থেকে অধ্যক্ষের পক্ষে স্বারক লিপিটি গ্রহন করেন টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজের শিক্ষক লিটন চন্দ্র সাহা। স্বারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়েছে, বর্তমান সরকার দেশের কারিগরি শিক্ষাকে আরো বিকশিত করার লক্ষে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক দেশের ৬৪টি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজে ৫ তলা একাডেমি-কাম-ওয়ার্কসপ ভবন নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করার কাজ হাতে নেয়। তারই অংশ হিসেবে “নারায়নগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ” (ভোকেশনাল) এর উন্মুক্ত খেলার মাঠটির মধ্যে উক্ত ভবন নির্মান করতে গেলে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, অভিভাবক সহ এলাকাবাসী নজড়ে পড়ে। তাদের সকলের দাবী কর্তৃপক্ষের এ আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে প্রতিষ্ঠানের উত্তর পশ্চিম দিকে ছাত্রাবাসের সাথে যে জায়গা পরিত্যাক্ত পরে আছে ওখানে ভবনটি করার যায়। এ ঘটনায় অত্র প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকার জনসাধারণসহ সকলে নবনির্মিত ভবন নির্মাণ কাজের জন্য বিষ্ময় ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন। সকলের মতে খেলার মাঠটি বিনষ্ট না করে পরিত্যাক্ত ভবনের সামনে বা পরিত্যক্ত জমিতে ভবন নির্মাণ করা সম্ভব। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ওই এলাকার পঞ্চায়েত প্রধান ইসমাইল মাদবর, সাবেক জাতীয় ফুটবলার মোতালেব হোসেন, সমাজকর্মি মোহাম্মদ শাহজাহান, আব্দুল আলী ফকির স্মৃতি সংসদের প্রধান সমন্বয়ক গোলাম মোস্তফা, জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ সুজন, জাতীয় ফুটবল খেলোয়াড় সোহেল রানা, মতিউর রহমান শরীফ, কামরুল হাসান শাকিল, মো. আবু সাঈদ, মো. সজল, মো. ইসমাইল হোসেন, তারিফ, আমিনুল ইসলাম রকি, মো. হাসান, সোহান, মারুফ সজল, ইমরুল হাসান লিমনসহ অত্র প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী এবং অভিভাবকবৃন্দ।
প্রসঙ্গত, নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন আইলপাড়া পাঠানটুলীতে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ। ১৯৮৪ সালে প্রায় ৬.৫ একর জমির উপর বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন ভোকেশনাল ট্রেনিং ইন্সটিটিউট হিসেবে এর যাত্রা শুরু হয় । তখনকার সময়ে অটোমোবাইল,ওয়োল্ডিং, রেডিও টিভি, আর এসি এই ৪টি ট্রেডে বেকার যুবকদের জন্য ট্রেনিং প্রদান করে সাবলম্বি হিসেবে গড়ে তুলতে সরকার এই প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। যা পরবর্তীতে এস এস সি ও এইচ এস সি পর্যায়ে নারায়ণগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ নামে পরিচিত।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *