কুমুদিনী শ্রমিকদের পূর্ণবাসণ ছাড়া উচ্ছেদ বন্ধের দাবীতে কাফনের কাপড়ে প্রতিকী মানববন্ধন

সংবাদটি শেয়ার করুন:

মনিকা আক্তার:
কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের অধীনে বেঙ্গল(বিডি) লিঃ জুট প্রেস কোম্পানিতে কর্মরত শ্রমিকদের শ্রম আইন অনুযায়ী প্রাপ্য পাওনা পরিশোধ না করে বাসস্থান উচ্ছেদ ঘোষনার প্রতিবাদে’ পূর্ণবাসণ ছাড়া শ্রমিক পরিবারকে উচ্ছেদ না করার’দাবীতে সংবাদ সম্মেলন ও পরে কাফনের কাপুড় পড়ে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
গত শনিবার (২৯ মে)বেলা সাড়ে ১১টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের মিলনায়তন কক্ষে কুমুদিনী বাগানের বসবাসরত শ্রমিক ও বাসিন্দাদের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় এ সংবাদ সস্মেলন।সংবাদ সম্মেলন শেষে প্রেস ক্লাবের নিচে কাফনের কাপড় পড়ে প্রতিবাদ মানববন্ধন করে কুমুদিনী বাসিন্দারা। সংবাদ সম্মেলনে কুমুদিনী বাসিন্দাদের পক্ষ হতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে মোঃনাসির।লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয় আমরা শ্রমিকগণ দীর্ঘ ৩০/৪০ বছর হতে কম-বেশি বিভিন্ন মেয়াদে কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের অন্তর্ভূক্ত বেঙ্গল (বিডি) লিমিটেড কারখানায় চাকরি করছি। বেঙ্গল বিডি লিমিটেড একটি লাভজনক পাটজাত শিল্প কারখানা ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান যাহার শ্রমিকগণ বাংলাদেশ শ্রম আইন দ্বারা পরিচালিত এবং এই আইনের সকল প্রকার সুযোগ সুবিধা পাওয়ার অধিকারী। অত্র আইনের নির্দেশনা অনুযায়ী কোনো শ্রমিকের চাকুরির অবসান করলে প্রাপ্য পাওনাদি পরিশোধ করা কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব।এছাড়াও এই আইনের ধারা ৩২ এর উপধারা ধারা (২)এ উল্লেখিত আছে শ্রমিকের পাওনা পরিশোধ না করে কোনো শ্রমিককে বাসস্থান হতে উচ্ছেদ করা যাবে না। সংবাদ সম্মেলনে কুমুদিনী বাসিন্দারা বলেন, নারায়ণগঞ্জে কুমুদিনী ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্স এন্ড ক্যান্সার রিসার্চ (কেআইআইএমএস কেয়ার) স্থাপন করা হবে। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন। এই প্রকল্পের আওতাধীন ছাত্রী হোস্টেল নির্মাণের জন্য ঈশা খাঁ সড়কের নারায়ণগঞ্জ ৩শ’ শয্যা হাসপাতালের পাশের উত্তর কুমুদিনী বাগানের জায়গা নেওয়া হবে।এজন্য আগামী ৩০ মে এর মধ্যে বাগানের বাসিন্দাদের ঘর ছেড়ে দিতে বলেছে মালিকপক্ষ।এর আগে কুমুদিনীর স্টাফ,ঝাড়ুদার ও অফিসের কর্মকর্তারা কয়েকজনকে বেতন বাড়িয়ে রেখে কিছু রুমে দিয়েছে কিন্তু আমাদের প্রত্যেকের ঘরে লাল দাগ দিয়ে ঘর ছেড়ে দেওয়ার জন্য বলা হয়।এ নিয়ে স্থানীয় কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের কাছে যান তারা। প্রথমে কোনো প্রকার সহযোগিতা করার সুযোগ নেই জানালেও পরে তিনি মালিকপক্ষের সাথে মুঠোফোনে কথা বলেন। এরপর মালিকপক্ষ ১০ হাজার টাকা প্রদানের প্রস্তাবের কথা জানান শ্রমিকদের।আমরা ম্যানেজার গেলে তিনি আমাদের জানায় তিনি বিহারীদের থাকার ব্যবস্থা করবে বাঙালীদের না।এদেশে সরকার ১২ লাখ রোহিঙ্গাদের থাকার জায়গা দিয়েছে আর আমাদের মাথার উপর থেকে কুমুদিনী ছাদ কেড়ে নিচ্ছে।এখান থেকে চলে গেলে আমাদের মৃত্য ছাড়া বাসস্থান নেই।রোহিঙ্গা, বিহারীরা যদি বাসস্থান পায় তাহলে আমরা বাঙালিরা কেনো পাবো?আমাদের যদি বাসস্থানের ব্যবস্থা না করে উচ্ছেদের চেষ্টা করা হয় আগামীকাল তাহলে আমাদের লাশের উপর দিয়ে এ হাসপাতাল বানাতে হবে। সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের সভাপতি অ্যাড. মাহবুবুর রহমান ইসমাইল বলেন,আমাদের নারায়ণগঞ্জ জেলায় মেডিকেল কলেজ ও ক্যান্সার হাসপাতাল হবে এটা অবশ্যই খুশির বিষয়। কিন্তু একটি মানবিক কাজ করতে গিয়ে শ্রমিকদের উচ্ছেদ করে দেওয়াও অমানবিক। কুমুদিনীর অনেক জমি রয়েছে। যেকোনো স্থানে তাদের বাসস্থানের জায়গা দেওয়ার জন্য কুমুদিনী ট্রাস্টের প্রতি দাবি জানাই।আর যেহেতু তারা এখনো কুমুদিনী ট্রাস্টের কর্মরত তাই শ্রম আইনের ৩২ ধারার ২ উপধারা অনুযায়ী শ্রমিকদের প্রাপ্য পাওনা পরিশোধের পূর্বে বাসস্থান হতে উচ্ছেদ করা যাবে না। কুমুদিনী ট্রাস্টের পক্ষ থেকে শ্রমিকদের পুনর্বাসনের দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলন শেষে কুমুদিনী বাসিন্দারা কাফনের কাপড় পড়ে পূর্ণবাসণ ছাড়া শ্রমিক পরিবারকে উচ্ছেদ না করার দাবীতে প্রতিকী মানববন্ধন করে। পরে মানববন্ধনটি শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক থেকে মিছিল নিয়ে ঈশা খাঁ সড়কে গিয়ে সমাপ্ত করে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্যফোন্ট সমন্বয়কারী শহীদুল ইসলাম,শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ দত্ত,শ্রমিক ফেডারেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃরাজু আহমেদ ও কুমুদিনী মোঃজামাল হোসেন(হযরত আলীর ছেলে),মোঃজাকির হোসেন,গিয়াসুদ্দিন সরকার,মোঃনাসির,আব্দুল জব্বার,মোঃখলিল, মোঃসুলতান, মোঃইউসূফ সরদার,মোঃজুয়েল সহ শতাধিক কুমুদিনী বাসিন্দারা।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *