শামীম ওসমান না.গঞ্জ জেলার উন্নয়নের রুপকার —————–শরীফুল

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মনিকা আক্তার:
শামীম ওসমান একজন ডায়নামিক লিডার।শামীম ওসমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে সর্বদায় সামলিয়ে উনার আসনের উন্নয়নের অগ্রাধিকার ভিত্তিক কাজগুলো নিয়ে এসেছেন। যেমন ষ্টেডিয়াম করেছে,এলাকায় যখন মোবাইল ফোন ছিলো না তখন টিএনডি ফোন তার হাত ধরে নারায়ণগঞ্জ জেলায় আসে,সরকারি তোলারাম কলেজকে বিশ্বাবিদ্যালয় তার মাধ্যমেই হয়েছে।আসলে আধুনিকায়ন বলতে যা বুঝায় উন্নয়ন নাগরিক সুবিধার সেবা সমূহের উপকরণ সব তার মাধ্যমেই এসেছে।তাছাড়াও শামীম ভাইয়েই ভাই নাসিম ভাই খানপুর হাসপাতাল করেছে।এখন পর্যন্ত তাদের মাধ্যমে হাসপাতালের উন্নয়নের কাজ চলছে।করোনার মহামারি সময়েও তাদের অবদান ছিলো অনেক নারায়ণগঞ্জ জেলায়।তার এক উদাহরণ খানপুর হাসপাতালে পিসিআর ল্যাব হয়েছে।

উক্ত কথা গুলো গত বুধবার(২৬ মে) নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের সাংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমানের উন্নয়ন নিয়ে এক সাক্ষাৎকারে ফতুল্লা থানা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু মোঃশরীফুল হক বলেন। শরীফুল হক বলেন,শামীম ওসমান ফতুল্লার জন্য সরকার থেকে ১৭৬ কোটি টাকা বরাদ্দ নিয়ে এসেছে এটা আমাদের ফতুল্লাবাসীর জন্য সুখবর। তিনি এর আগেও ফতুল্লার উন্নয়নের জন্য কাজ করেছেন অনেক ।ডিএনডি বাঁধ প্রকল্পের জন্য ১২শ কোটি টাকা,ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংকরোড ৬ লেন,ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ লিংকরোডকে ৪ লেন করবে,এর পর প্রত্যেক এলাকায় আরসিসি ঢালাই,ড্রেনেজ ব্যবস্থা,প্রতিটি এলাকায় বহুতল স্কুল ভবন এটা বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে এবং মোটামুটি বিভিন্ন এলাকায় মাদ্রাসা মসজিদের কাজ করেছে।সামনে আরো উন্নয়নমূলক কাজ করবেন তিনি।তার জন্য শামীম ওসমানকে সাধুবাদ জানাই।আর এ ১৭৬ কোটি টাকা আমাদের ফতুল্লার রাস্তাঘাট ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার জন্য নিয়ে আসার জন্য ধন্যবাদ জানাই। শরীফুল ফতুল্লার জলাবদ্ধতার কথা উল্লেখ করে বলেন,শামীম।ওসমান আমাদের ফতুল্লার প্রতিটি রাস্তাই আরসিসি ঢালাই করেছে।তাই এখন আর রাস্তা নষ্ট হয় কিন্তু এলাকায় এলাকায় জলাবদ্ধতা দেখা যায়।এর কারন হলো ডিএনডি খাল।ডিএনডি খালের সিস্টেমে লসের কারনে ড্রেনেজের পানি যেতে পারছে না তাই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে।আর কি বলবো বলেন আমাদের কাছেই লজ্জা লাগে চেয়ারম্যান বাড়ির রোডটা দেখেন ওই রোডে ২০০ ফিটের মধ্যে স্বপন চেয়ারম্যান,দেলোয়ার চেয়ারম্যান ও শওকত চেয়ারম্যান বাড়ী অথচ এ রাস্তায় পানি জমে থাকে। এর মূল কারন ডিএনডি প্রকল্পের কাজ চলছে।তবে আমাদের চেয়ারম্যানকে আরো কৌশলী হতে হবে। এমপি সাবের সাথে বুঝ পরামর্শ করে সেনাবাহিনীদের সাথে সমঝোতা করে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থাটা ঠিক করতে হবে।যেহেতু ডিএনডি খাল প্রকল্পের কাজটা সেনাবাহিনী করছে। খান সাহেব ওসমান আলী(ফতুল্লা) ষ্টেডিয়াম আন্তর্জাতিক ষ্টেডিয়াম হয়েও পানির নিচে তলিয়ে করূন অবস্থা হওয়ায় তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন,ওসমানি ষ্টেডিয়ামের প্রথম সমস্যাটা তৈরী হয় আমাদের মাননীয় মেয়র মহোদর যখন বিপরীত পাশে ময়লা ফেলেন।তারপর আন্তর্জাতিক ম্যাচ কমে যায় এখানে। আন্তর্জাতিক ম্যাচগুলো কমে যাবার কারনে ষ্টেডিয়ামের রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচর্যা গুলোও বন্ধ হয়ে গেছে।আমরা এক সময় ফতুল্লা ষ্টেডিয়াম বা বাসায় বসে নিজেদের মাঠের আন্তর্জাতিক ম্যাচ গুলো দেখতাম কিন্তু এখন তা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কষ্ট লাগে।গতকাল বাংলাদেশ শ্রীলংকা খেলা হলো এ ষ্টেডিয়াম ভালো থাকলে এ খেলাটা তো এখানেও হতে পারতো।আপনেরা সাংবাদিকরাও নিউজ কাভারেজ করতে পারতেন।আমি মেয়র মহোদয়কে বলবো উনি যেনো ওখানে ময়লা ফেলে আর পরিবেশ নষ্ট না করেন।তাহলে আমাদের এমপি শামীম ভাই আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে পরামর্শ করে এ ষ্টেডিয়ামকে আধুনিক ষ্টেডিয়ামে আবার রুপান্তর করবে। শরীফুল নারায়ণগঞ্জবাসীর চাওয়া জেলায় মেডিকেল কলেজ যেনো লিংকরোডে স্থাপন করে শামীম ওসমানের প্রতি এ আহবান জানিয়ে বলেন,আমাদের নারায়ণগঞ্জবাসীর অনেক দিনের দাবী নারায়ণগঞ্জ জেলায় একটা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও হার্ট ইন্সটিটিউট হবে।আমি ব্যক্তিগতভাবে শামীম ভাইকে অনুরোধ করবো লিংকরোড সংলগ্ন যেনো মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল করা হয়।এতে নারায়ণগঞ্জ জেলার সকল উপজেলার মানুষ সহজে এসে সেবা নিতে পারবে। তাছাড়া নারায়ণগঞ্জ জেলা সংলগ্ন অন্যান্য জেলার মানুষরাও এসে সেবা নিতে পারবে। সর্বশেষ শামীম ওসমানকে ধন্যবাদ জানিয়ে শরীফুল বলেন,শামীম ওসমানের মত দক্ষ ডায়নামিক লিডার যুগে যুগে একবারই আসে।তিনি শুধু লিডারই না। তিনি আমাদের নারায়ণগঞ্জ জেলার উন্নয়নের রুপকার।এ পর্যন্ত তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলার অনেক উন্নয়নমূলক কাজ করেছে এবং ভবিষ্যৎ আরো করবে তার জন্য শামীম ভাইকে ধন্যবাদ ও তার দীর্ঘায়ু কামনা করি।


সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *