না.গঞ্জে করোনা ভ্যাকসিনের মজুদ শেষ, টিকা প্রদান কার্যক্রম বন্ধ

সংবাদটি শেয়ার করুন:

স্বাধীন বাংলাদেশ রিপোর্ট:
নারায়ণগঞ্জে করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক কোভিশিল্ড টিকার (ভ্যাকসিন) মজুদ শেষ। গত এক সপ্তাহ যাবৎ কয়েকটি কেন্দ্রে টিকা প্রদান কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার (২৫ মে) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ। কবে নাগাদ টিকা আসবে সে বিষয়ে নিশ্চিত নয় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, সারাদেশেই টিকার সংকট। নতুন করে টিকা আমদানি করা হলে পরে জেলা পর্যায়ে সরবরাহ শুরু হবে।
গত ৭ ফেব্রুয়ারি সারাদেশে সাধারণ মানুষের মাঝে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রদান অর্থ্যাৎ গণটিকা প্রদান কার্যক্রম শুরু হয়। এর আগেই নারায়ণগঞ্জে ১ লাখ ৫৬ হাজার টিকা এসে পৌঁছায়। জেলা পর্যায়ে প্রথমে টিকা গ্রহণ করেন নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ। এরপর আরও এক দফায় নারায়ণগঞ্জে টিকা সরবরাহ করা হয়। নারায়ণগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসপাতাল, নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতালসহ চার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকা প্রদান কার্যক্রম চলে। তবে ঈদের তিনদিন পর থেকে কেন্দ্রগুলোতে টিকার মজুদ শেষ হয়ে আসতে থাকে। সর্বশেষ মঙ্গলবার বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকা প্রদান করা হয়েছে। তবে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসপাতাল, নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতাল কেন্দ্রে টিকাদান কার্যক্রম আগেই বন্ধ হয়ে গেছে।
জেলা করোনা ফোকাল পারসন ডা. জাহিদুল ইসলাম জানান, এই জেলায় মোট ১ লাখ ১৪ হাজার ৪৪৮ জন করোনার টিকার প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন। দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেছেন ৮৭ হাজার ১৪০ জন। তবে টিকার সরবরাহ না থাকায় জেলার কয়েকটি কেন্দ্রে টিকাদান কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। গত সোমবার আড়াইহাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকার মজুদ শেষ হয়েছে। মঙ্গলবার বন্দর উপজেলাতেও শেষ হয়েছে। সিটি এলাকা ও সদর উপজেলা কেন্দ্রে আরও আগেই টিকার মজুদ শেষ হয়ে গেছে।
জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ বলেন, এক সপ্তাহ পূর্বেই কয়েকটি কেন্দ্রে টিকার মজুদ শেষ হয়ে গেছে। সারাদেশের অন্যান্য জেলাগুলোতেও একই অবস্থা। দেশে নতুন করে টিকা আমদানি না করা পর্যন্ত টিকাদান কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *