শামীম ওসমান সিংহ পুরুষ, ভেল্কিবাজ নয় ## এড.ওয়াজেদ আলী খোকন, সাফায়েত আলম সানী, এড.নূর জাহান, আলহাজ্ব মতি, আশ্রাফ উদ্দিনের ক্ষোভ

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি:
যার বর্জকন্ঠে কাপে নারায়ণগঞ্জ জেলার মাটি। যার পদচারণায় আলোকিত হয়ে উঠে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ। যাদের কারনে নারায়ণগঞ্জ জেলার মাটিকে বলা হয় আওয়ামী লীগের ঘাটি। সে আর কেউ নয় নারায়ণগঞ্জ ওসমান পরিবারের কৃতি সন্তান নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের সাংসদ সদস্য, উন্নয়নের রুপকার নারায়ণগঞ্জ জেলার সিংহপুরুষ এ কে এম শামীম ওসমান। সেই শামীম ওসমানের রাজনীতি নিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার স্থানীয় একটি পত্রিকায় ‘ভেল্কিবাজি ‘উল্লেখ করে হৈচৈ ফেলে দিয়েছিন। এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলার বিভিন্ন শ্রেনীর রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা বক্তব্য গ্রহন করা হয়েছে। এখানে কারো মতে, নারায়ণগঞ্জ জেলার শতাব্দির শ্রেষ্ঠ নেতা শামীম ওসমান, কারো কাছে সুদর্শন, সিংহপুরুষ, আর কারো কাছে আপোষহীন নেতা এই শামীম ওসমান। তিনি ভেল্কিবাজ নয়। তাদের বক্তব্যে শামীম ওসমানের রাজনীতি নিয়ে ভেল্কিবাজি উল্লেখ করায় ক্ষোভ প্রকাশ পেয়েছে। অনেক নেতার মোবাইল আবার ঈদ উপলক্ষে বন্ধ পাওয়া গেছে। অনেকে আবার উপটোকন দেয়া ভয়ে মোবাইল ধরেনি। তাই যাদের থেকে বক্তব্য পাওয়া গেছে তাদের দিয়ে বুঝা যাবে আসলে সত্যতাটা কি?
পাঠকদের সুবিধার্থে আগে এমপি শামীম ওসমানকে নিয়ে খ্যাতিমান পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদটির সার সংক্ষেপ দেখে আসি। গতকাল ১১ মে খ্যাতিমান পত্রিকাটিতে এমপি শামীম ওসমানকে উল্লেখ করে ভেল্কিবাজ, প্রতিশ্রতি, এজেন্ডা ও আল্টিমেটাম দিয়ে কথা রাখে না, দুই এক মাস পর পর রাজনীতি ছেড়ে দেওয়া,শামীম ওসমানের রাজনীতি ভিন্ন দিকে মোড় নিচ্ছে,সমসাময়িক রাজনীতির সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারে না,নব্বইয়ের তরতাজা শামীম ওসমান এখন আর নেই, যুবলীগ নেতা পারভেজ গুমের উদ্বার ৭ বছরে সুরাহা করতে না পারা সহ তানভীর মোহাম্মদ ত্বকীকে নিয়ে প্রেস কনফারেন্স করবে বলে কনফারেন্স করেনি, এপ্রিলে মাঠে নামবে শামীম ওসমান বলেও মাঠে নামেনি এবং ঈদের পর আদৌ কিছু মানুষের মুখোশ উন্মোচন করতে পারবে নাকি ভেল্কিবাজি দিবে বিভিন্ন কথা উল্লেখ করে একটি সংবাদ প্রচার হয়। তা নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনীতি মহল থেকে স্থানীয় মহলে আলোচনা সমালোচনা। অনেকে জানিয়েছে তীব্র নিন্দা। এখন দেখি কে কি বলে?
প্রকাশিত সংবাদের নিন্দা জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ও নারায়ণগঞ্জ জেলার সাবেক পাবলিক প্রসিকিউটর এড.এস এম ওয়াজেদ আলী খোকন। তিনি বলেন,শামীম ওসমান একজন কালজয়ী নারায়ণগঞ্জ জন্য মানুষের নেতা। তিনি সব সময় জনগনের,জনমানুষের পাশে দাঁড়ান। তিনি একাধারে রাজনীতিবিদ, অর্থনীতিবিদ, সামাজিকবিদ। এই যে বিশাল একটা মহামারি সময় কর্মহীন মানুষের পাশে তিনি দাঁড়িয়েছেন। তিনি নিবেদিত প্রান হিসেবে মানুশের সেবা করে যাচ্ছেন। আর তাকে নিয়ে অনেকে সমালোচনা করবে স্বাভাবিক। কারন ভালোর সমালোচনা হবেই স্বাভাবিক।

ওয়াজেদ আলী তিনি আরো বলেন,আমার দেখা আপোষহীন রাজনীতিবিদ হচ্ছে তিনি। কারন তিনি কখনোই শত্রু বা স্বাধীনতা বিরোধী শত্রুদের সাথে আপোষ করে রাজনীতি করে না। আমি ৪৩ বছর ধরে তার সাথে রাজনীতি করে আসছি। আমি যেটুকু দেখেছি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিপক্ষে কোন রাজনৈতিক নেতাদের কারো সাথে আতাত করেনি। এক কথায় উনি একজন আপোষহীন নেতা।তিনি জঙ্গিবাদ,সন্ত্রাস,নৈরাজ্য সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে সব সময় কথা বলেছে।তার বিপক্ষে যে নিউজ এসেছে তার প্রতি আমি তীব্র নিন্দা জানাই।
নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানী প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন,আমার দেখা বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন বাস্তবায়নে যে সকল সৈনিক আছে তার মধ্যে একজন হচ্ছে শামীম ওসমান।শামীম ওসমানরা যুগে যুগে আসে না শতাব্দীতে আসে। পুরো বাংলাদেশে যদি ১০ জন নিষ্ঠাবান, যোগ্য,দক্ষ নেতা থাকে তার মধ্যে একজন অঅন্যতম শামীম ওসমান। কারন উনি এমনই একজন নেতা যে জাতীয় সংসদে ৩৪৯ জন সদস্যদের সামনে বলেছিলেন তার বিরুদ্ধে যদি কেউ কোন দোষ,ত্রুটি বা অপরাগতা পায় তাহলে সংসদ থেকে নাকে খর দিয়ে বের হয়ে আসবে।আমাদের নেতা হচ্ছে এমনই একজন নেতা যে বলিষ্ঠ সাহসী নেতা না একজন আদর্শবান, নিষ্ঠাবান ও মানবসেবী একজন নেতা।তার বিরুদ্ধে কে কি লিখলো বা বললো তা তার বিরুদ্ধে কিছুই না।কারন এমপি শামীম শুধু আমাদের নারায়ণগঞ্জের নেতাই না সারাদেশের নেতা।তিনি নব্বইয়ে যেভাবে মাঠ কাঁপিয়ে রাজনীতি করেছে আজো সেভাবেই রাজনীতি করে আসছে।
সোনারগাঁ মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এড.নূর জাহান বলেন, আমার দেখা একজন নেতা, সিংহপুরুষ শামীম ওসমান।নারায়ণগঞ্জে শামীম ওসমানের বিকল্প বলতে আর কেউ নেই।আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করে শামীম ওসমান যদি মনে ২৪ ঘন্টা চোখ বুঝে থাকলাম নারায়ণগঞ্জের জায়গা নারায়ণগঞ্জ থাকবে না। আর এ নামই শামীম ওসমান।বিভিন্ন মানুষ বিভিন্ন কথা বলবেই আল্টিমেটাম বা প্রতিশ্রুতি দিয়ে রাখে না এটা সম্পূর্ণ সঠিক না।কারন উনি নারায়ণগঞ্জের জন্য অনেক কিছু করেছে।গোলাম আজমকে নারায়ণগঞ্জের নিষিদ্ধ করেছে, পতিতালয়ের মত নিষিদ্ধ পল্লীকে উঠিয়ে দিয়েছে,খালেদা জিয়াকে সাইনবোর্ড থেকে আটকিয়ে দিয়েছে তার মত নারায়ণগঞ্জে অন্য কেউ করতে পারেনি এমন।অনেক নেতাই নেতৃ দিতে এসে হারিয়ে গেছে ভয়ে বা ক্ষমতার লোভে কিন্তু শামীম ওসমান কখনো পিছ পা হয়নি।আর নারায়ণগঞ্জ জেলায় শামীম ওসমানের ব্যতিক্রম কোন নেতা আমি দেখি না রাজনৈতিক দিক দিয়ে। আর আসবেও না। শামীম ওসমানের রাজনীতি ছেড়ে দেওয়া ও পারভেজ গুমের বিষয়ে তিনি আরো বলেন, রাজনীতি ছেড়ে দিবো করবো না এমন আমরাও মান অভিমান থেকে বলি।শামীম ওসমানও মান অভিমান বা ক্ষোভ থেকে বলে। আমাদের মত লক্ষ লক্ষ কর্মী নারায়ণগঞ্জে তার।আমাদের জন্যই রাজনীতি তিনি ছাড়তে পারে না।তাই আমি বলবো নারায়ণগঞ্জ জেলায় শামীম ওসমানের ২য় আর কেউ নাই। যারা তার বিরুদ্ধে সমালোচনা করে তাদের উদ্দেশ্যে বলবো আপনেরা যতই ষড়যন্ত্র বা সমালোচনা করেন না কেনো এমপি শামীম ওসমান একজনই।নারায়ণগঞ্জ জেলার সিংহপুরুষ আর তিনিই থাকবে।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের নয়নের মনি প্যানেল মেয়র আলহাজ্ব মতিউর রহমান মতি বলেন, আমার নেতা শামীম ওসমান একজন কালজয়ী নারায়ণগঞ্জ গন মানুষের নেতা। তিনি সব সময় জনগনের, জনমানুষের পাশে দাঁড়ান। এই যে বিশাল একটা মহামারি সময় কর্মহীন মানুষের পাশে তিনি দাঁড়িয়েছেন। তিনি নিবেদিত প্রান হিসেবে মানুশের সেবা করে যাচ্ছেন। আর তাকে নিয়ে অনেকে সমালোচনা করবে স্বাভাবিক। কারন ভালোর সমালোচনা হবেই স্বাভাবিক।
তিনি আরো বলেন, আমার দেখা আপোষহীন রাজনীতিবিদ হচ্ছে তিনি। কারন তিনি কখনোই শত্রু বা স্বাধীনতা বিরোধী শত্রুদের সাথে আপোষ করে রাজনীতি করে না। এক কথায় উনি একজন আপোষহীন নেতা।তিনি জঙ্গিবাদ,সন্ত্রাস,নৈরাজ্য সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে সব সময় কথা বলেছে। তার বিপক্ষে যে নিউজ এসেছে তার প্রতি আমি তীব্র নিন্দা জানাই।
বাংলাদেশ ট্যাংকলরী শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি নং বি-১৭৫৩ কেন্দিয় কমিটির যুগ্ন-সম্পাদক, স্বাধীন বাংলাদেশ পত্রিকার প্রকাশক আশরাফ উদ্দিন প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, আমার দেখা বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন বাস্তবায়নে যে সকল সৈনিক আছে তার মধ্যে অন্যতম হলেন, উন্নয়নের রুপকার এমপি শামীম ওসমান। তিনি হচ্ছে এমনই একজন নেতা যে বলিষ্ঠ সাহসী নেতা না একজন আদর্শবান, নিষ্ঠাবান ও মানবসেবী একজন নেতা।তার বিরুদ্ধে কে কি লিখলো বা বললো তা তার বিরুদ্ধে কিছুই না। কারন এমপি শামীম শুধু আমাদের নারায়ণগঞ্জের নেতাই না সারাদেশের নেতা।ি তনি নব্বইয়ে যেভাবে মাঠ কাঁপিয়ে রাজনীতি করেছে আজো সেভাবেই রাজনীতি করে আসছে। তারপরও বলবো সম্মানীয় ব্যক্তির নামে সংবাদে প্রকাশে আরো গুরুত্ব দেয়া উচিত। তাহলে তারা কাজে উৎসাহীতবোধ করবে। এদিকে উভয় দিকে পা রাখা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন নেতা বলেন, এমন হাজারো সমালোচনা, নিউজ প্রতিদিন বেড় হচ্ছে একজন শামীম ওসমানের বিরুদ্ধে কিন্তু তিনি যে একের পর এক উন্নয়ন করে চলেছে তা প্রকাশ করার কোন খবর নেই। কথায় আছে না দশটা ভালো কাজ করো তার কথা উঠবে না কিন্তু একটা মন্দ কাজ করো তা বাতাসে বাতাসে উড়ে বড়াবে।রাজনৈতিক নেতাদের এমন অনেক প্রতিশ্রুতি বলে পূরণ করা সম্ভব নয় কারন কিছু কিছু কাজ উদ্বতন নেতাদের হাতে সীমাবদ্ধ থাকে।তবে তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলার অবিসংবাদিত প্রান পুরুষ তা কেউ অস্বীকার করতে পারবে না।তিনি সব সময় মানুষের পাশে থেকে কাজ করছে এবং করবে।তার শত্রুতা কত কথা ও কত কিছুই লিখবে তাতে তার কোন সুনাম ক্ষুণ্ণ হবে না।


সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *