বড় ভাই নাসিম ওসমানের কবর জিয়ারত শেষে শামীম ওসমান বলেন. ঈদের পর কিছু মানুষের মুখোশ খুলবো

সংবাদটি শেয়ার করুন:

স্বাধীন বাংলাদেশ রিপোর্ট:
নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ বিষয়ে কয়েকদিন ধরে অনেকেই অনেক কথা বলে যাচ্ছেন। এখন রমজান মাস। কোভিড-১৯ চলছে,কবে চলে যাই জানি না। মৃত্যু যদি না হয় তাহলে ঈদের পর আল্লাহ যদি সবাইকে সুস্থ রাখে নারায়ণগঞ্জের কিছু সত্য কথা বলবো এবং কিছু সত্য জিনিস তুলে ধরবো। কিছু মানুষের মুখোশ খুলবো। তারপর দেখা যাক আল্লাহ কয়দিন বাঁচিয়ে রাখে। আমরা কিন্তু এসেছি সবাই সরবে।জীবনেরও এসেছি সরবে কান্না করে, যাবো নিরবে। রাজনীতিতে এসেছি সরবে প্রয়োজনে চলে যাবো নিরবে, যাওয়ার আগে অনেকেরই মুখোশ উম্মোচন করে দিয়ে যাবো।
গতকাল শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন কেন্দ্রীয় মাসদাইর কবরস্থান মসজিদে জুম্মার নামাজের শেষে বড় ভাই প্রয়াত সাংসদ সদস্য নারায়ণগঞ্জ ৫ আসনের এ কে এম নাসিম ওসমানের কবর জিয়ারত করে উক্ত কথা বলেন তিনি। নারায়ণগঞ্জের করোনা হাসপাতালের অব্যবস্থাপনার প্রশ্নে শামীম ওসমান বলেন, কবরস্থান সবার শেষ ঠিকানা। আল্লাহ পৃথিবীতে আজাব দেন শিক্ষা নেওয়ার জন্য। এ থেকে যদি কেউ শিক্ষা না নেয় তাহলে তাকে আল্লাহর কাছে জবাব দিতে হবে।যেখানেই অনিয়ম হবে আপনারা আমাকে জানাবেন, আমি আমার ক্ষুদ্র ক্ষমতাবলে চেষ্টা করবো।যারাই এ ধরনের ঘটনা ঘটায় তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। যখন এমন অভিযোগ আসে, শতশত ডাক্তারা যারা রোগীকে সেবা দিতে গিয়ে মারা গেলেন তাদের আত্মত্যাগ ¤¬ান হয়ে যায়। তিনি আরো বলেন, উন্নত দেশে যখন বড়দিন উৎসব আসে তখন দ্রব্যমূল্য কমে আর আমাদের দেশে আমরা জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে দেই। আমরা এ টাকা কোথায় নিয়ে যাবো। আমি এ ব্যাপারে খোঁজ নেবো।আপনারা এভাবেই আমাদের অনিয়ম গুলোর ইনফরমেশন দিয়ে যাবেন। যদি আমরা ব্যবস্থা না নেই আমাদের বিরুদ্ধেও আপনাদের লেখনীর মাধ্যমে আমাদের সমালোচনা করবেন। হেফাজত ইস্যু সম্পর্কে শামীম ওসমান বলেন,একজন সাংবাদিকের জন্য সব সাংবাদিক, একজন পুলিশের জন্য সব পুলিশ, একজন ডাক্তারের সব ডাক্তার যেমন দোষী নয় তেমনি কতিপয় আলেমের অপরাধের জন্য ঢালাওভাবে সমগ্র আলেম সমাজকে অপরাধী না করি। কোনো ব্যক্তি অপরাধ করতে পারে তার জন্য কিন্তু পুরো আলেম সমাজ অপরাধ করতে পারে না। মামুনুল হক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মামুনুল হক সাহেবের কী হয়েছে সেটি বিষয় না, আমার কাছে একটা প্রশ্ন, আমাদের যাদের অক্ষরজ্ঞান আছে, কোরআনটা পড়তে পারি, কোনটা সহীহ কোনটা অসহীহ সেটা জানতে পারি। কিন্তু এদেশের শতকরা ৮০ ভাগ লোকের কিন্তু সে অক্ষরজ্ঞান নাই। আমরা দেখি গ্রামে-গঞ্জে বিভিন্ন জায়গায় মানুষ টাকা দিয়ে ওয়াজ করায়। এই আলেম সমাজকে সম্মানের সাথে নেয় ও দাওয়াত দেয় এবং তারা এখানে বক্তব্য দেন। আমি নিজে বহু ওয়াজে গিয়েছি এবং দেখেছি যখন তারা কথা বলে তখন মানুষের চোখ দিয়ে গড়গড় করে পানি পড়ে এবং সেগুলো গ্রহণ করে। যখন সেই মানুষগুলো এইসব ঘটনা দেখে তখন সেটি সব ধর্মের জন্যই খারাপ। আর মৌলবাদ কিন্তু সব ধর্মেই আছে। সোনারগাঁ থানায় মামুুনুল হকের বিরুদ্ধে তার কথিত স্ত্রীর মামলার বিষয়ে শামীম ওসমান বলেন, এটা নতুন কোনো ঘটনা নয়। একাত্তরে দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রব হারিয়েছে। আমরা এ ঘটনায় কষ্ট পেয়েছি। যিনি নিজেকে আলেম দাবি করেন তিনি এমন কাজ কীভাবে করেন? এরকম ঘটনা নতুন নয় এবং এটাও শেষ নয়। এমন ঘটনা আরও ঘটবে। শামীম ওসমান সাংবাদিকদের প্রতি কতৃজ্ঞতা জ্ঞাপন করে বলেন, গত এক বছরে নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিকরা প্রচুর পরিশ্রম করেছেন। তাই আমি নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিকদের কাছে কৃতজ্ঞ। আপনারা পরিশ্রম করেছেন বিধায় আমরা চেষ্টা করতে পেরেছি সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *