মেয়রের বাড়ির মতো প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলের নেত্রীরও বাড়ি নেই: খোকন সাহা

সংবাদটি শেয়ার করুন:

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:
নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান সম্প্রতি একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের টকশোতে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর বাড়ি নির্মাণের অর্থ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। এর প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতা ভিন্ন প্রতিক্রয়া জানিয়েছেন। তবে, শামীম ওসমানের কথার সাথে একমত পোষণ করেছেন খোকন সাহা।
গতকাল শনিবার (২৪ এপ্রিল) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক লিখিত বার্তায় তিনি এমন মতামত প্রকাশ করেন।
লাইভ নারায়ণগঞ্জের পাঠকদের জন্য খোকন সাহার পাঠানো বার্তাটি তুলে ধরা হলো- ‘দেবোত্তর সম্পত্তি বা ওয়াকফ সম্পত্তি কেনাবেচা বা হস্তান্তর উভয়ই দণ্ডনীয় অপরাধ। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পরে যখন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বাড়িতে থাকতে পারেনি, তখনও নারায়ণগঞ্জের ৩৮৩ শতাংশ দেবোত্তর সম্পত্তি ৬টি জাল দলিল করে ১৯৭৯ সালে মেয়রের দুই ভাই, মেয়রের চাচা-চাচী, নানা ও মামারা আত্মসাথে চেষ্টা করে।
এ বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশসহ দেশের বাইরে বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমে সংবাদ প্রচারিত হয়। বর্তমানে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতৃবৃন্দের কাছে প্রশ্ন, এটা কি মেয়র এর পরিবারের দখলদারিত্বের মধ্যে পড়ে না?’
‘গত ২০১৯ সালের ২২ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জের সিটি কর্পোরেশনের অবৈধ দখলের কারণে একটি পার্কের নির্মাণাকাজ বন্ধ করে দেন বাংলাদেশ সরকারের রেল মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। ঐদিন মাননীয় মন্ত্রীর সাথে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেন। ওই নির্মাণাধীন কাজ কি দখলদারিত্বের মধ্যে পড়ে না?’
‘২০২০ সালের ২১ ডিসেম্বর দেওভোগ বাংলাবাজার নির্বাসী বিজ্ঞ আদালতে পিটিশন মামলা (নম্বর ৬৮৫/২০) দায়ের করেন। মামলায় বাদী উল্লেখ করেন ওই বছরেরই ২০ ডিসেম্বর সকাল ৮টার দিকে মেয়রের তত্বাবধানে বাদীর ১৮ শতাংশ জায়গা দখল করতে আসে। এটা কি দখল দারিত্ব নয়?’

‘সিদ্ধিরগঞ্জে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জালালউদ্দিনের জমি দখলের মহামান্য হাইকোর্টে বিভাগে সিভিল রুলে (৩৩/২০২০) মেয়র গং এর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। উক্ত মামলায় মহামান্য উচ্চ আদালত মেয়র আইভীর রং এর বিরুদ্ধে আদেশ প্রদান করেন যে, জালালউদ্দিনের জায়গা দখল করে রাস্তা নির্মাণ করা যাবে না। পরবর্তীতে মহামান্য উচ্চ আদালতের নির্দেশ অমান্য করে রাস্তা নির্মাণ কাজ করা কি দখলদারিত্বের মধ্যে পড়ে না?’
‘মেয়র আইভী ও তার পরিবারের ৫ জন সদস্য মো. আলাউদ্দিন এর মালিকানাধীন ৬.৫৬ শতাংশ ভূমি দখল করার কারণে নারায়ণগঞ্জে বিজ্ঞ দেওয়ানী আদালতে বিগত ২০১৪ সালের ৭ মে দেওয়ানী মামলা নম্বর ৩৪৬/১৪ দায়ের করেন বাদি আলাউদ্দিন মিয়া। এটা কি দখলদারিত্বের মধ্যে পড়ে না?’
‘চলতি বছরের ২৩ ফেব্রুয়ারি মন্ডলপাড়া মসজিদের জায়গা দখলের বিষয় মসজিদ কমিটি নারায়ণগঞ্জে দেওয়ানী আদালতে মামলা (নম্বর ২৪/২১) দায়ের করেন। বিজ্ঞ আদালত ওই মসজিদের জমিতে মেয়রসহ অন্য চারজনকে মসজিদের জায়গা দখল না করার আদেশ প্রদান করেন। এটাও কি দখলদারিত্বের মধ্যে পড়ে না?’
‘কেউ কেউ মেয়রের অপরাধ ঢাকার লক্ষ্যে ও জাতীয় সংসদে উত্থাপিত দুর্নীতির তদন্ত প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য বলে বেড়াচ্ছেন দুদকের অভিযোগ থেকে খালাস পেয়েছেন। সেই দুদকের খালাসের কাগজপত্র জনগণের সামনে প্রকাশ করেন বুঝা যাবে আসল বিষয় কি?’
‘বিভিন্ন সময় নিজেকে সম্পদহীন দাবি করা মেয়র, নারায়ণগঞ্জের হোয়াইট হাউস নামে খ্যাত বিশাল প্রাসাদে থাকেন। বাড়িটি কার? নারায়ণগঞ্জের মানুষের কাছে প্রশ্ন? এই রকম বাড়ি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলের নেত্রী ও প্রেসিডেন্টেরও নাই। সবই কি আলাউদ্দিনের চেরাগ? এই বিষয়ে কিছু বলেন একাধিকবার প্রেসিডেন্ট সাহেব।’


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *