শুক্রবাজারের বাজারের হালচাল

সংবাদটি শেয়ার করুন:

বাজার প্রতিনিধি:
সপ্তাহের ব্যবধানে শহরের বাজারগুলোতে দাম কিছুটা কমলেও এখনো চড়া দামেই বিক্রি হ”েছ প্রায় সব ধরনের সবজি। পেঁপে, টমেটো ছাড়া সব ধরনের সবজি ৫০ টাকার ওপরে বিক্রি হ”েছ। ফলে সবজির দাম স্বস্তি দি”েছ না সাধারণ ক্রেতাদের।
গতকাল শুক্রবার (২৩ এপ্রিল)বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, মান ও বাজার ভেদে বেগুনের কেজি বিক্রি হ”েছ ৪০ থেকে ৬০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৮০ থেকে ১২০ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে বেগুনের দাম কমে প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। রোজাকে কেন্দ্র করে বেগুনের মতো অস্বাভাবিক বাড়া শসার দামও সপ্তাহের ব্যবধানে কমেছে। গত শুক্রবার ৮০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া শসা এখন ৫০ টাকায় পাওয়া যা”েছ। দাম কমার তালিকায় রয়েছে- সজনে, পটল, বরবটি, শিম, ঢ়েঁড়স। গত শুক্রবার ৮০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া সজনের দাম কমে ৬০ থেকে ৭০ টাকা হয়েছে। পটলের কেজি বিক্রি হ”েছ ৪০ থেকে ৫০ টাকা, তা গত শুক্রবার ছিল ৬০ থেকে ৭০ টাকা। গত শুক্রবার ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া বরবটির দাম কমে ৫০ থেকে ৬০ টাকা হয়েছে। ঢ়েঁড়সের কেজিও বিক্রি হ”েছ ৫০ থেকে ৬০ টাকায়, যা গত শুক্রবার ছিল ৭০ থেকে ৮০ টাকা। শিমের কেজি বিক্রি হ”েছ ৫০ টাকায়, যা গত শুক্রবার ৬০ টাকা ছিল। এদিকে সপ্তাহের ব্যবধানে দাম অপরিবর্তিত রয়েছে লাউ, ধুন্দল, করলা ও ঝিঙের। গত সপ্তাহের মতো লাউয়ের পিস বিক্রি হ”েছ ৬০ থেকে ৭০ টাকা। ধুন্দল, করলা ও ঝিঙের কেজি বিক্রি হ”েছ ৬০ থেকে ৮০ টাকায়। রোজায় চাহিদা বাড়ায় গত সপ্তাহে বাড়া টমেটোর দাম সপ্তাহের ব্যবধানে কিছুটা কমেছে। গত শুক্রবার ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া টমেটো ২৫-৩০ টাকা হয়েছে। আর পেঁপে আগের সপ্তাহের মতো ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজি বিক্রি হ”েছ।বাজারে নতুন আসা কাঁকরোলের কেজি বিক্রি হ”েছ ৮০ থেকে ৯০ টাকা। কাঁকরোলের মতো চড়া দামে বিক্রি হ”েছ কচুর লতি। এক কেজি কচুর লতি কিনতে গুনতে হ”েছ ৭০ থেকে ৮০ টাকা। কাঁচকলার হালি বিক্রি হ”েছ ৩০ থেকে ৪০ টাকায়। সবজির পাশাপাশি দাম কমেছে শাকের। গত সপ্তাহে ১৫ থেকে ২০ টাকা আঁটি বিক্রি হওয়া পালং শাকের আঁটি এখন বিক্রি হ”েছ ১০ থেকে ১৫ টাকা। একই দামে বিক্রি হ”েছ লাল শাক, সবুজ শাক, পাট ও কলমি শাক। পুঁই শাকের আঁটি বিক্রি হ”েছ ৩০ থেকে ৪০ টাকা, যা গত শুক্রবার ছিল ৫০ টাকা। এদিকে গত শুক্রবারের তুলনায় ব্রয়লার ও পাকিস্তানি জাতের সোনালী মুরগির দাম কিছুটা কমেছে। গত শুক্রবার ১৫০ থেকে ১৫৫ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া বয়লার মুরগির দাম কমে ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা কেজি বিক্রি হ”েছ। সোনালী মুরগির কেজি বিক্রি হ”েছ ২৩০ থেকে ২৭০ টাকা, যা গত শুক্রবার ছিল ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা। আর লাল লেয়ার মুরগির কেজি আগের মতো ২০০ থেকে ২২০ টাকা বিক্রি হ”েছ। অন্যদিকে এ বাজার গুলোতে দেখা যা”েছ মানুষের উপচে পড়া ভিড়। করোনা থেকে সুরক্ষায় মানা হ”েছ না স্বা¯’্যবিধি। ফলে করোনার উ”চ সংক্রমণের ঝুঁকি তৈরি হয়েছে এখানে।ক্রেতা এবং বিক্রেতা অধিকাংশই ব্যবহার করছে না মাস্ক এবং সামাজিক দুর“ত্ব।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *