শাহজাহানের জুয়ার আসরে র‌্যাবের অভিযান কথিত সম্পাদক মারসুসহ ৯জন গ্রেপ্তার

সংবাদটি শেয়ার করুন:

শহর প্রতিনিধি:
নারায়ণগঞ্জের ইয়ার্ন মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের ক্লাব থেকে ২২ জুয়াড়ি গ্রেফতারের চারদিনের মাথায় আবারও নারায়ণগঞ্জে অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব-১০। এসময় জুয়ার আসর থেকে ৯ জুয়াড়িকে আটক করে র‌্যাব হেফাজতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। র‌্যাবের এসব অভিযানে ইতোমধ্যে টনক নড়েছে নারায়ণগঞ্জের জুয়ার হর্তাকর্তাদের। পবিত্র রমজান মাসে জুয়ার এমন আসরের ছড়াছড়ি দেখে অবাক হয়েছেন সাধারণ মানুষ। এই জুয়ার আসরটিও ইয়ার্ন মার্চেন্টের মতোই কুখ্যাত জুয়াড়ি ছোট শাহজাহান ও বড় শাহজাহান নিয়ন্ত্রণ করতো বলে জানা গেছে। গত বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) নারায়ণগঞ্জের ৫ নং খেয়া ঘাট এলাকা থেকে ৯ জুয়াড়িকে আটক করে র‌্যাব-১০। বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব ১০ এর কোম্পানি কমান্ডার।র‌্যাবের সূত্র জানায়, নারায়ণগঞ্জের ৫ নং খেয়াঘাট এলাকায় জুয়ারিরা তাদের আসর জমিয়ে বসেছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাব। এই স্থানে আগেও একাধিকবার জুয়াড়িরা এখানে আসর বসায় এবং আইন শৃঙ্খলা বাহিনী বেশ কয়েকবার অভিযান চালিয়েছে। একাধিকবার অভিযান চালাবার পরেও থেমে থাকেনি এখানকার জুয়ার আসর। এর সাথে নারায়ণগঞ্জের বেশকিছু উপর মহলের লোকজন জড়িত থাকায় প্রতিবারই তারা জামিনে বেরিয়ে আবারও জুয়ায় জড়ায়। বৃহস্পতিবারের অভিযানে ঘটনাস্থলে র‌্যাব-১০ এর সদস্যরা হাতেনাতে ৯ জুয়াড়িকে আটক করা হয়। এর ভেতর যোদ্ধা নামক একটি অখ্যাত পত্রিকার কথিত ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক জনৈক সুমন ওরফে মারসু নামে এক ব্যক্তিও রয়েছেন।এদিকে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, নারায়ণগঞ্জে এই ছোট শাহজাহান ও বড় শাহজাহানের এসব জুয়ার আসরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়মিত সফল অভিযান পরিচালনা করলেও আদতে কিছুদিন পরই আবার সেগুলো সচল হয়। এরকারণ হিসেবে জানা গেছে,্ এসব জুয়ার আসর থেকে অখ্যাত কিছু পত্রিকার সম্পাদক, প্রশাসনের অসাধু সদস্যরা নিয়মিত মাশোয়ারা আদায় করে থাকে। যার ফলে সফল অভিযানের পরও বন্ধ হচ্ছেনা দুই শাহজাহানের জুয়ার আসর। এর আগে নারায়ণগঞ্জের ইয়ার্ন মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের ক্লাবের ৪ তলা থেকে জুয়া খেলা অবস্থায় ২২ জুয়াড়িকে গ্রেফতার করে র‌্যাব ১০ এর একটি দল। এসময় জুয়া খেলার ব্যবহৃত কার্ড ও নগদ ২ লক্ষ ৩১ হাজার ২০০টাকা জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হলে জুয়ারিদের ছাড়াতে সদর থানায় বিভিন্ন মহলের থেকে ফোন করে তদবির চালায় বলে জানা গেছে।ওই মামলায় গ্রেফতার হওয়া জুয়াড়িরা হলেন- সর্বজিৎ সাহা (৪৩), মো. আলমগীর (৫৬), কৃষ্ণ রায় (৪২), লিটন কুমার রায় (৪৬), কমল ওরফে বাবু (৩২), এনামুল (৩২), হাসান জামান (৪৭), নজরুল (৪৫), রিপন কুমার সাহা (৪৫), লক্ষণ সাহা (৩০), হাফিজুর রহমান (৩৮), সোলাইমান (৩৪), তাপস কুমার শীল (৪৭), শুক্কুর মিয়া (৪৯) শ্যামল বৈদ্য (৪২), আবু সাবেদ প্রিন্স (৩০), জলিল খান (৫৭), রুবেল (৩৪), রুস্তম (৫৬), মনির হোসেন (৪১), জীবন কুমার সাহা (৪৪) ও রিপন সাহা (৪৭)। এদিকে নতুন করে অভিযান চালানোর বিষয়ে বিস্তারিত জানতে হয় র‌্যাব-১০ এর অপস অফিসারের নিকট। তিনি বলেন, বিষয়টি আমরা সংবাদ বিজ্ঞপ্তি আকারে সকল গণমাধ্যমকে জানিয়ে দিব। এই ধরণের অভিযান র‌্যাব আগেও চালিয়েছে এবং ভবিষ্যতেও অব্যাহত রাখবে।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *