করোনার ২য় ডোজ নিতে খানপুরে ভীড়, ভিক্টোরিয়া ফাঁকা

সংবাদটি শেয়ার করুন:

হাসপাতাল প্রতিনিধি:
করোনাভাইরাস সংক্রামণ রোধে করোনাভাইরাস ২য় ডোজে নারায়ণগঞ্জ জেলায় এক হাসপাতালে উপচে পড়া ভীড় অন্য হাসপাতালে কোন মানুষ না থাকায় অবসরে সময় পার করছে ডাক্তার,নার্স ও স্বেচ্ছাসেবীরা। গতকাল বুধবার(২১ এপ্রিল)সরেজমিনে দেখা যায় এ চিত্র নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট খানপুর ও নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে। একদিকে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট খানপুর হাসপাতালে প্রতিদিনিই করোনার ২য় ডোজ নিতে আসা মানুষের উপচে পড়া ভীড় ও লম্বা লাইন দেখা যায়।যা কন্ট্রোল করতে হাসপাতাল কতৃপক্ষকে খেতে হচ্ছে হিমশিম।সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত হাসপাতালের গেইটের সামনে লাইনে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থেকে টিকা দিতে হচ্ছে মানুষদের। কিন্তু নারায়ণগঞ্জ জেনারেল(ভিক্টোরিয়া) হাসপাতালে দেখা যায় তার উল্টো চিত্র।খুবিই স্বল্প পরিমান মানুষ নিতে যাচ্ছে করোনার ২য় ডোজ।লম্বা লাইন হওয়া তো দূরের কথা সেখানে মানুষই কম পাচ্ছে ডাক্তার, নার্স ও স্বেচ্ছাসেবীরা।বসে বসে অবসর সময় পার করছেন তারা। এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের একজন চিকিৎসক জানান,খুবিই স্বল্প পরিমান টিকা নিতে আসা রোগী পাচ্ছি।তাই বসে অবসর সময় পার করতে হয় আমাদের। নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে স্বেচ্ছায় সেবা দিতে আসা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের আরবান রুরাল ভলেন্টিয়ার পান্না জানায়,আমাদের এখানে খুব কম পরিমানে লোক আসে করোনার ২য় ডোজের টিকা নিতে।শুনেছি খানপুর হাসপাতালে নাকি অনেক ভীড় হয়।সময় হলে দেখতে যাবো আমিও। খানপুর হাসপাতালের একজন চিকিৎসক জানায়,সকাল থেকে হাসপাতালে করোনার টিকা নিতে আসা মানুষদের খুব চাপ থাকে আমাদের এখানে।যে পরিমান মানুষ হয় তা কন্ট্রোল করতে আমাদের অনেক কষ্ট হয়। টিকা নিতে আসা একজন জানায়,খানপুর হাসপাতালে যে লম্বা সিরিয়াল ধরে টিকা দিতে হয় ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে মানুষই পায় না টিকা দিতে ডাক্তাররা শুনেছি।দুই হাসপাতালের মধ্যে সমঝোতা করে নিতে আমাদের এই ঘন্টার পর দাঁড়িয়ে থেকে টিকা নিতে এত কষ্ট করতে হয় না।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *