লকডাউনে না.গঞ্জ ইফতার বাজার

সংবাদটি শেয়ার করুন:

বিশেষ প্রতিনিধি:
সর্বাত্মক লকডাউনের ২য় দিন স্বাস্থ্যবিধি মেনেও সরগরম ছিল ইফতার বাজার। সন্তানদের বায়না পূরণে অনেক বাবা-মা অভিজাত ক্লাব, রেস্টুরেন্ট,হোটেল থেকে পছন্দের ইফতার কিনে নিয়ে যান। বিশেষ করে জিলাপি, হালিম, ফিরনি,মেজবানি মাংস, দই, দইবড়া, সিঙ্গাড়া,সমুচা, রোল ইত্যাদি পদ কিনতেই ঘরের বাইরে আসেন অনেকে। সরেজমিন দেখা গেছে, পহেলা বৈশাখের সরকারি ছুটি, করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ রোধে কঠোর লকডাউনের কারণে দিনভর নগরের সড়ক ফাঁকা থাকলেও ইফতারের বেশ কয়েক ঘণ্টা আগে থেকে ব্যক্তিগত যানবাহন,মোটরসাইকেল, রিকশা বাড়তে থাকে। বেশিরভাগ যানবাহনের গন্তব্য ছিল হোটেল-রেস্টুরেন্ট কিংবা স্বজনদের বাসা-বাড়ি। নগরীর এই হোটেল,রেস্টুরেন্টগুলোতে পাওয়া যাচ্ছে সমুচা, কাবাব (মিটবল), আলুর চপ, শামি কাবাব, চিকেন রোল, শর্মা, জালি কাবাব, শিক কাবাব,সাসলিক কাবাব, ফিরনি ইত্যাদি। হাত বাড়ালেই ইফতার প্রতিবছরের মতো বড় পরিসরে না হলেও নগরজুড়ে বসেছে ইফতারের হাট।বেচাকেনাও জমে উঠেছে বেশ। বিশেষ করে দুই নম্বর গেট, মন্ডলপাড়া ,চাষাড়া, খানপুর, পাইকপাড়া, জিমখানামাঠ, নিতাইগঞ্জ, শিবুমার্কেট, ঝালকুড়ি, ভূইঘর, পাগলা, ফতুল্লা, মাসদাইর, ইসদাইর এলাকাসহ প্রায় প্রতিটি ছোট-বড় হোটেল, রেস্টুরেন্টের সামনে ইফতারের পসরা দেখা গেছে। এ ছাড়া খেজুর, লেবু, তরমুজ, কলা, কাঁচা ও পাকা আম, ডাব, পুদিনা পাতা, মুড়ি,কাঁচামরিচ, ধনেপাতা ইত্যাদিও বিক্রি হচ্ছে মোড়ে মোড়ে।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *