সোনারগাঁয়ে বাড়ি দখলে যুবলীগের তান্ডব ৩ নারীসহ আহত-১০, থানায় অভিযোগ

সংবাদটি শেয়ার করুন:

স্টাফ রিপোর্টার:
সোনারগাঁয়ে প্রতিপক্ষ থেকে উৎকোচ নিয়ে উপজেলা যুবলীগের নেতা নুরে আলম সিদ্দিকীর নেতৃত্বে তান্ডব চালিয়ে দেয়াল উপড়ে ফেলে ভাঙচুর করে বাড়ি দখলের অভিযোগ উঠেছে। এসময় জমির মালিক বৃদ্ধ তোতা মিয়া তার পরিবারের লোকজন বাড়ি দখলে ভাউন্ডারি দেয়াল উপরে ফেলতে বাধা দেয়ায় তাদের উপর উপর্যপরি হামলা চালায়। এ হামলায় তোতা মিয়া (৬৫) তার স্ত্রী শেফালী বেগম(৫৫), ছেলে সাইফুল ইসলাম(৩৪) ভাতিজা ইমরান(৩২), ভাতিজি মুনা আক্তার(২৫) ও বোন নাসিমা বেগম(৪০)সহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি করে গ্রামবাসী। রোববার দুপুরে মাধবপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ইমরান বাদি হয়ে সোনারগাঁ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। গত ৪ দিনেও থানা পুলিশ কোনো ব্যবস্থা গ্রহন না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভূক্তভোগী পরিবার ও গ্রামবাসী। উপর্যপরি হামলার শিকার আহত ইমরানকে তার পরিবার বুধবার রাতে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করেন।
গ্রামবাসী সূত্রে জানাগেছে, উপজেলা মোগরাপাড়া ইউপির বাধবপুর গ্রামের মৃত তাইজউদ্দিনের ছেলে জালালউদ্দিন মৃত ছিদ্দিক মিয়ার ছেলে সেলিম মিয়ার সঙ্গে একই গ্রামের মৃত মোহাব্বত আলীর ছেলে তোতা মিয়া, হিরন মিয়া ও মুকুল মিয়ার দীর্ঘ ৩ বছর ধরে ১২ শতাংশ বসত বাড়ি নিয়ে আদালতে মামলা মোকাদ্দমা চলে আসছিল। উভয় পক্ষের আদালতে মামলা মোকাদ্দমা থাকা সত্যেও প্রতিপক্ষ জালালউদ্দিন ও সেলিম মিয়ার কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকার উৎকোচের মিনিময়ে একই গ্রামের মৃত রফিক মেম্বারের ছেলে সোনারগাঁ উপজেলা যুবলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক নুরে আলম সিদ্দিকীর নেতৃত্বে মোহাম্মদ আলী, আতাউর রহমান আতাবর, কবির হোসেন, কাউছার, ফয়সাল, খোকন মুন্সী, মোশারফ, ইপ্তি, জুয়েল, জাকির হোসেন, ইব্রাহীম, মিঠু, নাছিরউদ্দিন, সালাউদ্দিন ও ওমর ফারুকসহ ৪০-৫০জনের একটি দল রোববার দুপুরে নালিশি জমির ভাউন্ডারি দেয়াল উপড়ে ফেলে এবং ঘরবাড়ি ভাঙচুরসহ তান্ডব চালায়। এসময় বাড়ির মালিক তোতা মিয়া (৬৫) তার স্ত্রী শেফালী বেগম, ছেলে সাইফুল ইসলাম ভাতিজা ইমরান, ভাতিজি মুনা আক্তার ও বোন নাসিমা বেগম বাধা দিলে তাদের উপর উপর্যপরি হামলা চালিয়ে বৃদ্ধা নারীসহ পড়নে থাকা জামা-কাপড় ছিড়ে ফেলে শ্লীলতাহানি ঘটনায়। বাড়ি দেয়াল ভেঙ্গে উপড়ে পাশ্ববর্তী একটি পুকুরে ফেলে দিয়ে সন্ত্রাসীরা চলে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে আহতদের উদ্ধার করে সোনারগাঁ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। আহতদের মধ্যে ইমরানের পা ভেঙ্গে যাওয়ায় সোনারগাঁ হাসপাতাল থেকে তাকে বুধবার রাতে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় রোববার রাতে ভূক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে সোনারগাঁ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোনারগাঁ থানার এএসআই আলমগীর ঘটনাস্থল পরিদর্শক করেছেন।
এ ব্যাপারে সোনারগাঁ উপজেলা যুবলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক নুরে আলম সিদ্দিকীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বললে তিনি জানান, জালালউদ্দিন ও তোতা মিয়া একই রক্ত বংশের লোক। উভয়পক্ষ বাড়ি নিয়ে মারামারি ঘটনা ঘটেছিল। আমি এলাকার মাতব্বর হিসাবে উভয় পক্ষকে মধ্যস্তা মিমাংসা করতে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছি।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *