সোনারগাঁয়ে ৫’শ টাকায় ১২ বছরের শিশু ধর্ষণ

সংবাদটি শেয়ার করুন:

নিজস্ব প্রতিবেদক
৫০০ টাকার প্রলোভন দেখিয়ে ১২ বছরের এক কণ্যা শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে সোনারগাঁও থানায় মামলা হয়েছে। শনিবার (২৭ মার্চ) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় ধষর্ণের শিকার ও শিশু কণ্যার বোন বাদী হয়ে মো. বিল্লা হোসেন (৪০) নামের এক ব্যক্তিকে আসামী করে মামলাটি দায়ের করেন। এই ঘটনায় ধর্ষণের অভিযোগে সোনারগাঁয়ের কাঁচপুর এলাকার ইব্রাহীম ভূইয়া ভাড়াটিয়া মো. বিল্লাল হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
ধর্ষক বিল্লাল হোসেন চাঁদপুরের উত্তর মতলব ঘাসির চর এলাকার মৃত সোনা মিয়ার ছেরে। সে বর্তমানে সোনারগায়ের কাঁচপুর এলাকায় কৃষিকাজ করে। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সোনারগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম। তিনি জানিয়েছেন, ভূক্তভোগী কণ্যা শিশু (১২) এর বোন মামলা দায়ের করার পরই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এদিকে গতকাল বিকেলে জেষ্ঠ্য বিচারিক হাকিম মো. শাকিল আহাম্মদ এর আদালতে ওই কিশোরী ২২ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করে কোর্ট পুলিশের সহকারী উপ-পরিচালক এএসআই তাহামিনা বলেন, সোনারগাঁয়ের দায়ের করা ধর্ষণ মামলায় ১২ বছরের ওই কিশোরী বিজ্ঞ আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করেছে। এ সময় আদালত গ্রেপ্তারকৃত আসামী বিল্লালকে জেল হাজতে পাঠানোর আদেশ দেন। মামলা সূত্রে জানা গেছে, ধর্ষণের শিকার শিশুটির মা ৩ বছর আগে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করে। মায়ের মৃত্যুর পর থেকেই শিশুটি তার বোড় বনের সাথে ছিল। গত মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) সকাল ১০ টায় অভিযুক্ত বিল্লাল হোসেন ৫০০ টাকার প্রলোভন দিয়ে একটি জঙ্গলের ঝোপে নিয়ে গিয়ে শিশুটির ইচ্ছার বিরুদ্ধে নির্মমভাবে ধর্ষণ করে। তারই ধারাবাহিকতায় গত শুক্রবার (২৬ মার্চ) বিল্লাল পুনরায় ওই শিশুটিকে টাকার প্রলোভন দিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে। তবে সেই দিন শিশুটি ভয়ে চিৎকার করে বিল্লালের পাশবিক নির্যাতন থেকে রক্ষা পেতে পালিয়ে চলে আসে। শিশুটির বোন তার অভিযোগে জানিয়েছেন, বাসার নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস ক্রয় করার টাকা নিয়ে স্বামীর সাথে ঝগড়া হয়। ওই সময় তার ছোট বোন ধর্ষণের শিকার ১২ বছরের শিশুটি তার কাছে টাকা আছে বলে ৫০০ টাকা বের কের দেয় বোনকে। তখন শিশুটির বোন ও বোন জামাতা এই টাকা কোথায় পেয়েছে জানতে চাইলে শিশুটি তার সাথে ঘটে যাওয়া পাশবিক নির্যাতনের বিষয়টি প্রকাশ করে।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *