নারায়ণগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উদ্যোগে জাতির জনকের জন্মবার্ষিকী পালন

সংবাদটি শেয়ার করুন:

নিজস্ব প্রতিনিধি:
নারায়ণগঞ্জ ৫ আসনের সাংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা এ কে এম সেলিম ওসমান বলেন,আমাদের সমস্যা একটাই করোনা ভাইরাসের।তা না হলে আজকে অনেক ঝাকঝমকভাবে আজকের এই অনুষ্ঠান হতো।মুক্তিযোদ্ধা ও শিশুদের জন্য এই ভাইরাস অনেক স্বাস্থ্য ঝুকি।শেখ মুজিবুর রহমানের আদশে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে গড়ে তুলতে হবে।তার জন্য আজকে অনেক জায়গায় অনুষ্ঠান হয়েছে।আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে গড়ে তুলতে হবে। তাদের গড়ে তুলতে হলে স্কুলগুলো খুলে দিতে হবে। আমাদের সমস্যা একটাই, করোনা ভাইরাস। যদি এটা না হতো, আজকে আমরা শিশু আর মুক্তিযোদ্ধা সবাইকে নিয়েই এই উৎসব পালন করতাম। নারায়ণগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধা নিয়ে আমরা গর্ববোধ করতে পারি। আমি অনুরোধ করবো, ২৬শে মার্চ যেন মুক্তিযোদ্ধাদের একত্রিত করা হয়। গতকাল বুধবার(১৭ মার্চ)বেলা ৩টায় বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নারায়ণগঞ্জ জেলা ও সদর উপজেলা কমান্ডোর আয়োজনে নারায়ণগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা কমপে¬ক্স ভবনে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে এ কথা বলেন তিনি । তিনি আরো বলেন,সবাইকে ধন্যবাদ জানাই, সবাই সময়মতো এসেছেন। এই রুমের ভেতরটা আড়াইটার সময় ভরে গেছে, যেখানে সাড়ে তিনটার সময় সমাবেশ হওয়ার কথা। আমাদের জেলা প্রশাসক, ওনার সাড়ে তিনটায় আসার কথা উনিও তিনটায় চলে এসেছেন, সব প্রোগ্রাম বন্ধ রেখে। আপনারাও দোয়া করেন, যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব এটা যেন শেষ হয়। আমরা যেন জাতীয় অনুষ্ঠানগুলো বড় বড় করে করতে পারি। দুঃখের বিষয়, আমরা যখন এক প্রোগ্রাম থেকে আরেক প্রোগ্রাম করতে যাই, দেখি ৩০ জন ৩৫ জন মানুষ নাই। এই আয়োজনে অবদানের জন্য চেম্বার অব কর্মাসের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজলকে ধন্যবাদ জানান এমপি সেলিম ওসমান।কাজলকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আমাদের অনেক সাহায্য করেছেন খালেদ হায়দার খান কাজল। তার কাছে অনুরোধ করবো ২৬ মার্চে মুক্তিযোদ্ধারা যেন এক হয়ে পারে। সে যেন বৃদ্ধ মানুষগুলোকে থাকার জায়গা করে দেয়, খাওয়ার জায়গা করে দেয়। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ, নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোহাম্মদ আলী, চেম্বার অব কর্মাসের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, সদর উপজেলা কর্মকর্তা নাহিদা বারিক,বীরমুক্তিযোদ্ধা মোহর আলী,বীরমুক্তিযোদ্ধা সারজাহান ভূইয়া জুলহাস,বীরমুক্তিযোদ্ধা নূর উদ্দিন আহমেদ,হামিদুর রহমান,ধামগড় ইউনিয়নের কমান্ডার বাহাউদ্দিন, ফতুল্লা ইউনিয়নের সাবেক কমান্ডার আলেম,নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃশাহ জাহান,ওসি(তদন্ত)মোঃমোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *