নবীগঞ্জ গুদারাঘাটে নারীকে শ্লীতাহানীর ঘটনায় যুবক কারাগারে

সংবাদটি শেয়ার করুন:

নিজস্ব প্রতিবেদক
নগরীর হাজীগঞ্জ গুদারাঘাট এলাকায় নারীকে শ্লীতাহানী ও মারপিটের অভিযোগে মো. শহীদুল ইসলাম (২৫) নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। ঘটনাটি গত সোমবার রাত ৯টায় হাজীগঞ্জ গুদারাঘাটে সংঘটিত হয়ে। এই ঘটনায় তানিয়া আক্তার নামের ভূক্তভোগী নারী শহীদুল ও তার অপর সহযোগী মনসুরের নাম উল্লেখ করে গতকাল মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা করেন। মামলা দায়েরের পর সদর পুলিশ অভিযুক্ত মো. শহীদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শাহজামান। তিনি জানিয়েছেন অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এই মামলায় মনসুর নামের আরেক অভিযুক্ত বর্তমানে পালাতক রয়েছে। তাকে গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। জানা গেছে, ওই দিন বন্দরের নবীগঞ্জ উত্তপাড়া এলাকার মো. ইমরান হোসেনের স্ত্রী তানিয়া আক্তার (৩০) নগরীর পপুলার ডাযাগোনষ্টিক সেন্টারে ডাক্তার দেখিয়ে হাজীগঞ্জ গুদারাঘটে নৌকার জন্য অপেক্ষায় ছিরেন। ওই সময় মো. শীদুল ইসলাম ও মনসুর নামের দুই যুবক ওই নারীকে দেখে অশ্লিল ভাষায় গালিগালাজ করে। একপর্যায়ে শহীদুল তানিয়া আক্তারের পরনে থাকা বরকার ওড়না ধরে টানা হেচড়া করে এবং ইট দিয়ে ওই নারীর মাথায় আঘাতসহ অভিযুক্ত ওই যুবকের সাথে থাকা একটি ধারালো চাকু দিয়ে পার মারার চেষ্টা করে। এতে আহত ওই নারী চাকুর আঘাত ফেরাতে গিয়ে তার দুই হাতের কুবজিতে গুরুতর আঘাত পায়। ওই সময় শহীদুলের অপর সহযোগী মনসুর গৃহীনি তানিয়া আক্তারকে বেধরক কিল ঘুষি ও লাথি মারে। মামলা সূত্রে জানা গেছে, অভিযুক্ত শহীদুল ইসলাম ভূক্তভোগী নারী তানিয়া আক্তারের পূর্ব পরিচিত। সেই সুবাদে শহীদুল প্রায় সময়ই তানিয়াকে মোবাইল ফোনে ফোন করে বিভিন্ন সময় প্রেম নিবেদনসহ বিভিন্ন কু প্রস্তাব প্রদান করে আসছিল।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *