সিদ্ধিরগঞ্জে মাদ্রাসা ছাত্র হত্যার অভিযোগে শিক্ষকসহ ৭জন গ্রেফতারে রহস্য

সংবাদটি শেয়ার করুন:

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি:
সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল থেকে ছাত্র হত্যার অভিযোগে কওমি মাদ্রাসার তিন শিক্ষক ও চার ছাত্রকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার রাতে রসুলবাগ মাঝিপাড়া রওজাতুল উলম মাদ্রাসা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। পরে গতকাল শুক্রবার নিহতের পিতা বাদী হয়ে মামলা করলে দুপুরে তাদের আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ। নিহত ছাত্রের নাম ছাব্বির আহম্মেদ (১৪)। সে রূপগঞ্জ থানার বরপা এলাকার মো: জামাল হোসেনের ছেলে। একজন মাদ্রাসা ছাত্র হত্যার অভিযোগে ৭জন গ্রেফতারে রহস্য সৃষ্টি হয়েছে। মাদ্রাসা জুড়ে সিসি ক্যামেরা থাকার পরও সেদিকে নজর না দেয়ার কারন কি? রুপগঞ্জ থেকে গোদনাইল রসুলবাগ মাদ্রাসায় কেন মাদ্রাসার ছাত্র সাব্বিরকে আনা হলো। ইত্যাদি বিভিন্ন প্রশ্ন সাধারন মানুষের মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে। সাধারন ধর্মপ্রান মানুষ মনে করছে এটা মাজার পুজারীদের একটি বড় ধরনের চক্রান্ত হতে পারে। কারন কয়েক বছর আগে এই মাদ্রাসার হুজুরদের নেতৃত্বে বহু পুরাতন তিন গাট্টি মাজার ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে। তখন থেকে এই মাদ্রাসার প্রতি মাজার পুজারীদের ষড়যন্ত্র চলছে। তাই মাদ্রাসার সুনাম রক্ষার্থে সাব্বির হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত চায় এলাকার ধর্মপ্রান মানুষ। এই মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সাথে জড়িত ১০নং ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন, সাধারন সম্পাদক নুর আলী, সহ-সভাপতি ইসহাক মোল্লা সাংবাদিকদের বলেন, যে ছাত্রটি মারা গেছে, সে ছিলো মাথার সমস্যা। তার পিতামাতা অতিষ্ট হয়ে তাকে দুরের মাদ্রাসা হিসাবে এখানে ভর্তি করে গেছে। পিতা মাতার সাথে অভিমান করে সে আত্নহত্যা করতে পারে। আপনারা বিষয়টি পুলিশকে জানান নি কেন, এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের মাদ্রাসার অনেক সুনাম রয়েছে। বর্তমানে এই মাদ্রাসার শিক্ষার মান ভালো। তাই সুনামের কথা চিন্তা করে তা জানাইনি।
গ্রেপ্তাররা হলেন- মাদ্রাসার শিক্ষক চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ থানার মধুপুর এলাকার নূরুল ইসলাম মিয়াজির ছেলে শামীম, ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর থানার ইমাদপুর এলাকার আলাউদ্দিনের ছেলে মাহমুদুল হাসান, ঢাকার গেন্ডারিয়া থানার শাখারিনগর এলাকার মোজাম্মেল হকের ছেলে আবু তালহা, মাদ্রাসার ছাত্র, নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার উত্তর লক্ষণখোলা এলাকার আবুল কালামের ছেলে আবু বক্কর, ময়মনসিংহ জেলার পাগলা থানার কাজা গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে শওকত হোসেন সুমন, একই জেলার ফুলপুর থানার ইমাদপুর গ্রামের মৃত আলাউদ্দিনের ছেলে জুবায়ের আহমেদ ও চাঁদাপুর জেলার ফরিদগঞ্জ থানার ভাটিরগাঁও গ্রামের মৃত তমসির মিয়ার ছেলে আাব্দুল আজিজ। মামলার বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, সাব্বির ওই মাদ্রাসায় আবাসিকভাবে থেকে হিফজ বিভাগে পড়তো। গত ১০ মার্চ সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে শিক্ষক যুবায়ের জামাল হোসেনের মোবাইলে ফোন দিয়া জানায়, ছাদে উঠার সিড়ি সংলগ্ন ফাঁকা রডের সঙ্গে গলায় গামছা পেঁছিয়ে সাব্বির আত্নহত্যা করেছে। এখবর পেয়ে নিহতের পিতা মাদ্রসায় গিয়ে অন্যান্য ছাত্র ও শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে লাশ বাড়ীতে নিয়া দাফনের প্রস্তুতি নেয়। লাশের গোসল করানোর সময় ঠোটে, কপালে ও মাথার ডানদিকে আঘাতের চিহ্নসহ গালায় রশির দাগ দেখা যায়। তখন সন্দেহ হত্যাকে আত্নহত্যার নাটক সাজানো হয়েছে। ফলে বিষয়টি মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষকে জানালে মাদ্রাসা থেকে অজ্ঞাতনামা হুজুর নিহতের পিতার মোবাইলে কল দিয়া ছেলের মৃত্যুর বিষয়টি পুলিশকে না জানানোর জন্য বিভিন্ন ভাবে বুঝ-পরামমর্শ দেয়। ভিকটিমের অভিভাবকরা নিশ্চত হয় এটা হত্যা। মাদ্রাসার শিক্ষক বা সহযোগীদের আঘাতে মৃত্যুকে আত্নহত্যা হিসাবে চালানোর জন্য লাশ গামছা দিয়ে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে সাধারন ছাত্রদের মধ্যে প্রচার করে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। পরে নিহতের পিতা জামাল হোসেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশকে ঘটনা জানালে রাতে পুলিশ ওই সাতজনকে আটক করে।##


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *