মেয়র আপনার কত জায়গা লাগে …………হকার্স নেতা মফিজ

সংবাদটি শেয়ার করুন:

নিজস্ব প্রতিনিধি:

হকার্স নেতা কমরেড হাফিজুল ইসলাম হাফিজ বলেন,একজন মানুষ যদি মারা যায় তাহলে তাকে সাড়ে ৩ ফুট জায়গা লাগে। কিন্তু আপনে মেয়র আপনার কত জায়গা লাগে। আমাদের চোরের মত লাথি মারেন আমাদের পেটে।আমাদের এই গরীব মানুষরা চুরি করে না। তারপরও তাদের কেনো চোরের মত দৌড়াদৌড়ি করতে হয়।গতকাল আমরা কি অপরাধ করেছিলাম আমরা শান্তিপূর্ণ ভাবে মিছিল করেছি কিন্তু আমাদের হকার্স নেতা আসাদের উপর হামলা চালিয়ে লাঞ্চিত করেছেন।আপনেরা চাঁদাবাজি যারা করে তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিতে দেখা যায় না।

গতকাল সোমবার(৮ মার্চ)সকাল ১১টায় নারায়ণগঞ্জের চাষাড়ায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে হকার্সদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচী শেষে হকার সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক আসাদুল ইসলাম আসাদ সহ হকার্সদের উপর পুলিশের ন্যাক্কার জনক হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি। হাফিজুল ইসলাম হাফিজ আরো বলেন,কিছুদিন আগে আমাদের নতুন পুলিশ সুপার এসেছিলেন।আমরা তার প্রতি আস্তায় ছিলাম।তিনি নাকি কাউকে বিচার করেন না।তিনি শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করে।তাই তার উপর আমরা হকার্সরা আস্তায় আছি।তিনি আমাদের দুঃখ বুঝবেন।তার আশায় আমরা বসে আছি।আমাদের দায়িত্ব প্রাপ্ত যারা আছেন তারা আলোচনার টেবিলে বসেন।তারা বসে আমাদের সমস্যার কথা নিয়ে আলোচনা করেন।হকার্সদের পূর্ব্যণবাসনের ব্যবস্থা করেন। হাফিজুল মেয়রকে সতর্ক করে বলেন,আর একজন হকার্সদের গায়ে হাত তুলেন তাহলে আমরা সারা বাংলাদেশের হকার্সরা বসে থাকবে না।আগুন জ্বালিয়ে দিবো আমরা।আর একবার যদি হকার্সদের মালামালের উপর হামলা করেন তাহলে আমরা নিজের গায়ে আগুন দিয়ে আতুহতি দিবো।আমরা নিজের হাতে আইন তুলে নিবো না।আমরা এমন কাজ করবো যাতে হামলার পালটা আঘাত আসে। হকার্স নেতা আসাদ বলেন,পুলিশ প্রশাসনের সাথে আমাদের কোন শত্রুতা নেই।তিনি তার দায়িত্ব পালন করে।কিন্তু তাদেরও ভাবতে হবে আমরা হকার্স নিরহ। আমাদের দেখেও আপনেরা তাকাবেন।আমাদের পেটে লাথি মারবেন না।আমাদেরও দিন শেষে পরিবার আছে আমাদের লাথি মেরে তাদের মুখের খাবার ছিনিয়ে নিয়ে যাবেন না। হকার্স সংগ্রামী ও প্রতিবাদী নেতা দীলিপ দাস বলেন,আপনে আগে আপনার শহর থেকে মশা তাড়ানোর ব্যবস্থা করুন তারপর হকার্স উচ্ছেদ করতে আসুন।আপনে ভূলে যাবেন না হকার্স ও সাধারণ জনগনদের টেক্সের টাকা দিয়ে আপনার বেতন হয়।আপনে চাকুরী ছেড়ে দিয়ে এসে হকার্সদের সাথে যুদ্ধ করতে আসবেন। বাংলাদেশের আইনে লিখা আছে হকার্সদের উচ্ছেদ করার আগে পূর্ণবাসন ব্যবস্থা করে করতে হবে।আর যদি হকার্স উচ্ছেদ করতে চান, পূর্ণবাসন ব্যবস্থা ছাড়া উচ্ছেদ করতে পারবেন না। এসময় উপস্থিত ছিলেন সংগ্রামী হকার্স কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সিকান্দার,শ্রমিক নেতা এম এ শাহীন,সুমন হাওলাদার,জুয়েল হোসেন,হকার্স সংগ্রামী নেতা আসাদ,নাসির প্রমূখ।


সংবাদটি শেয়ার করুন:

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *